ঢাকা বৃহঃস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১, ৯ আষাঢ় ১৪২৮

বঙ্গবন্ধুর বদৌলতে মামুনুল প্রাণে রক্ষা পাচ্ছেন

ড۔ সেলিম মাহমুদ | প্রকাশিত: ১৪ এপ্রিল ২০২১ ২৩:২৩; আপডেট: ২৪ জুন ২০২১ ০৫:১৬

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীন বাংলাদেশে যে ধর্মনিরপেক্ষ সংবিধান এবং আইনি ব্যবস্থা প্রণয়ন করেছিলেন, তার কারণেই মামুনুল হক ইসলামিক শরিয়া আইন অনুযায়ী ব্যভিচারের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড থেকে রক্ষা পাচ্ছেন। হেফাজতসহ কিছু উগ্রপন্থী ধর্মভিত্তিক সংগঠন বাংলাদেশে ইসলামী বিপ্লব সংঘটিত করে ইসলামিক শরিয়া আইনভিত্তিক শাসনব্যবস্থা কায়েম করার ঘোষণা দিয়ে আসছে।

ইসলামিক শরিয়া আইন বহাল থাকলে আজ ব্যভিচারের অপরাধে মামুনুল হকের মৃত্যুদণ্ড হতো। স্বাধীন বাংলাদেশে বঙ্গবন্ধু বাস্তবিক কারণেই একটি ধর্মনিরপেক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করেছিলেন। রাষ্ট্রীয় আইনি ব্যবস্থার (লিগ্যাল সিস্টেম) শ্রেণীকরণ/ক্লাসিফিকেশন কয়েক রকমের। একটি মৌলিক শ্রেণীকরণ হচ্ছে, ধর্মভিত্তিক বা প্রাকৃতিক আইন ব্যবস্থা ( Divine Law or Natural Law) এবং মানবসৃষ্ট আইন (Positive Law) বা ধর্মনিরপেক্ষ আইনব্যবস্থা। ভারতীয় উপমহাদেশের কয়েকশ বছরের আইন ব্যবস্থাসমূহ পর্যালোচনা ক্রমে বাস্তবিক অবস্থা বিবেচনায় নিয়ে জাতির পিতা মানবসৃষ্ট আইন বা পজিটিভ ল' ভিত্তিক আইনব্যবস্থাকে (যা ধর্মনিরপেক্ষ আইনব্যবস্থা হিসেবেও পরিচিত) স্বাধীন বাংলাদেশের আইনব্যবস্থা হিসেবে গ্রহণ করেন। জনগণের সার্বভৌমত্ব এবং জনগণের কল্যাণই এ আইন ব্যবস্থার মূলভিত্তি।

জাতির পিতা উপলব্ধি করেছিলেন, পাকিস্তানি শাসক গোষ্ঠী ধর্মের দোহাই দিয়েই আমাদের ওপর তাদের অন্যায়-অত্যাচার চাপিয়ে দিয়েছিল। ধর্মকেই তারা তাদের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করেছিল। বাঙালির মুক্তি সংগ্রামের সময় বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে এ বিষয়ে জাতীয় ঐকমত্য প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। এছাড়া, ব্রিটিশ শাসন-পূর্ববর্তী সময়ে মুঘল শাসনামলে ভারতবর্ষে যতটুকু ইসলামিক শরিয়া আইন চালু ছিল, সেটি নানা দিক থেকে ত্রুটিপূর্ণ ছিল। তাতে ইসলামের অনুশাসন বাস্তবায়িত হয়নি।

মধ্যযুগে ইউরোপে ধর্মভিত্তিক যে রাষ্ট্র ব্যবস্থা ছিল, সেটিও মানুষের কল্যাণের পরিবর্তে অকল্যাণেই ব্যবহার হয়েছে। আমাদের মতো আর্থ-সামাজিক-সাংস্কৃতিক বৈশিষ্ট্যসম্পন্ন দেশগুলোতে ইসলামিক অপরাধ আইন বা ‘ইসলামিক ক্রিমিনাল জাস্টিস’ বাস্তবিক অবস্থার কারণেই সুষ্ঠুভাবে বাস্তবায়ন করা যায়নি। এসব কারণে জাতির পিতার নেতৃত্বে স্বাধীন বাংলাদেশের গণপরিষদ ইসলামিক আইনকে বাংলাদেশে পার্সোনাল আইন ( Personal Law) হিসেবে গ্রহণ করেন। এই আইনের মাধ্যমে সম্পত্তির উত্তরাধিকার, বিবাহ, ভরণ-পোষণ, বিবাহ বিচ্ছেদ, দেন-মোহর, শিশুর অভিভাবকত্ব, দান, ট্রাস্ট ও ট্রাস্ট সম্পত্তি, ওয়াকফ সম্পর্কিত এবং অপরাপর ব্যক্তিগত বিষয়সমূহ ইসলামিক শরিয়া আইন অনুযায়ী নিয়ন্ত্রিত হচ্ছে। পৃথিবীর অনেক মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ রাষ্ট্রে এ ধরনের ব্যবস্থা রয়েছে। জাতির পিতা এ দেশে আইনের শাসন ও ন্যায়বিচারভিত্তিক যে শাসনব্যবস্থা প্রবর্তন করেছিলেন, সেটি ইসলামিক জুরিসপ্রুডেন্সের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ।

হেফাজতেসহ কিছু উগ্রপন্থী সংগঠনের নেতারা বাংলাদেশের সব ক্ষেত্রে শরিয়া আইন বাস্তবায়ন করতে চায়। এই লক্ষ্যে তারা এদেশে ইসলামী বিপ্লব সংঘটিত করতে চায়। মামুনুল হকসহ এসব মিথ্যাবাদী ও ভণ্ড ব্যক্তিদের মুখোশ উম্মোচিত হচ্ছে । নিজেরা ব্যক্তি জীবনে সব ধরনের অনৈতিক, অপরাধমূলক ও ইসলাম পরিপন্থী কাজ করছে, অথচ তারা ইসলাম ধর্মের নামে এদেশের ধর্মভীরু মানুষ ও কোমলমতি শিশুদের প্রতিনিয়ত ধর্মের ভয় দেখিয়ে প্রতারিত করছে। তারা সমাজে নিজেদের ইসলামের প্রতিনিধি হিসেবে উপস্থাপন করছে। কথায় কথায় তারা ধর্মকে বিক্রি করছে; শুধু নিজেদের স্বার্থে তারা সমাজে ধর্মান্ধতার বিষবাষ্প ছড়াচ্ছে। মামুনুল হক যে কাজটি করেছে, এটি ইসলামিক শরিয়া আইন অনুযায়ী ব্যভিচার, যার শাস্তি মৃত্যুদণ্ড। মধ্যপ্রাচ্যের অনেক দেশেই এই ইসলামিক শরিয়া আইন চালু রয়েছে। অধিকাংশ দেশেই পাথর নিক্ষেপ করে ব্যভিচারীর মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়। জাতির পিতা সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশে যদি Positive Law (জুরিসপ্রুডেন্সের ভাষায়) বা ধর্মনিরপেক্ষ আইন ব্যবস্থা চালু না করে ইসলামিক আইন চালু করতেন, তাহলে মামুনুল হককে ব্যভিচারের অপরাধে পাথর নিক্ষেপ করে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হতো।

লেখক : তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। 




আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top