ঢাকা শনিবার, ৮ অক্টোবর ২০২২, ২২ আশ্বিন ১৪২৯

৯৯৯-এ ফোনে অপহৃত ভারতীয় নাগরিক উদ্ধার

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | প্রকাশিত: ২১ মার্চ ২০২১ ২২:৫৭; আপডেট: ৮ অক্টোবর ২০২২ ০১:৫১

জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯- এ ফোনে এক অপহৃত ভারতীয় নাগরিকসহ দুইজনকে উদ্ধার করেছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ। এসময় অপহরণের সঙ্গে জড়িত দুইজনকেও গ্রেফতার করা হয়েছে।

সদর থানা ও জেলা গোয়েন্দা পুলিশ যৌথভাবে এই অভিযান পরিচালনা করে।রবিবার (২১ মার্চ) জাতীয় জরুরী সেবা ৯৯৯ এর পরিদর্শক আনোয়ার সাত্তার এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

 

আনোয়ার সাত্তার জানান, শনিবার (২০মার্চ)  সকাল সাড়ে সাতটায় জেলা সদরের হালদার পাড়া থেকে হানিফ নামে একজন কলার ৯৯৯ নম্বরে ফোন করেন। ওই কলার জানান, তার ভগ্নিপতি ঠিকাদার মোবারক হোসেন (৪৫) এবং ভগ্নিপতির ব্যবসায়ী অংশীদার ভারতীয় নাগরিক মিন্টু দাস (৪৫) আশুগঞ্জ-ত্রিপুরা চারলেনের সড়কের কাজ করছিলেন।  ১৯ মার্চ  আশুগঞ্জ থেকে  তারা ব্রাহ্মণবাড এসেছিলেন ব্যবসায়িক কাজে। সেদিন রাতে তারা সদরের কলেজপাড়া এলাকায় যান। সেখানে ব্যক্তিগত গাড়ির চালককে অবস্থান করতে বলে পায়ে হেঁটে এগিয়ে যান। কিন্তু গভীর রাতে তারা ফিরে না এলে চালক ফোন করে উভয়ের ফোন বন্ধ পেয়েছন। পরে রাত দেড়টায় চালকের ফোনে ঠিকাদার মোবারক ফোন করে জানান তারা একটি কাজে আটকে গেছেন, তিনি যেন সেখানে অবস্থান করেন।

তিনি আরও জানান, এরপর ২০ মার্চ ভোর রাতে ভারতীয় নাগরিক মিন্টু দাসের ফোন হতে আশুগঞ্জে তাদের আরেক ব্যবসায়ী অংশীদারের কাছে একটি এসএমএস যায়।  মেসেজে মিন্টু দাস জানান, তারা অপহরণের শিকার হয়েছেন, তাদের ছাড়িয়ে আনতে ১০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দিতে হবে, নইলে তাদের মেরে ফেলা হবে। ওই মেসেজে টাকা রেডি করে রাখার জন্য বলা হয়।  তখন সেই ব্যবসায়ী অংশীদার আশুগঞ্জে অবস্থিত কলারের বোন এবং সদরে অবস্থানরত কলারকে বিষয়টি জানান।

৯৯৯ তাৎক্ষণিকভাবে কলারের সাথে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানার ডিউটি অফিসারের কথা বলিয়ে দেয়। একই সাথে বিষয়টি ব্রাহ্মণবাড়িয়া পুলিশ নিয়ন্ত্রণ কক্ষ ও জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানানো হয়। পুলিশ সুপারের নির্দেশে জেলা পুলিশের একাধিক টিম অপহৃতদের উদ্ধারে মাঠে নামে। অবশেষে তথ্য-প্রযুক্তির সাহায্যে অবস্থান চিহ্নিত করে ২১ মার্চ রবিবার ভোর রাত সাড়ে তিনটায় অপহৃত দুজন কে অক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানার ইন্সপেক্টর (অপারেশন্স) ইশতিয়াক ৯৯৯ কে ফোনে জানান,  অপহরণে জড়িত থাকার অভিযোগে ইসতাহা ভুইয়া ওরফে ইয়াম (২২) ও মতিন ওরফে রবিন  (২০) নামে সদরের বাসিন্দা দুইজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এই ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে।




আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top