ঢাকা বুধবার, ৫ অক্টোবর ২০২২, ১৯ আশ্বিন ১৪২৯

বিশ্বজুড়ে ৩০০ কোটি ডোজ টিকা দেওয়া ​হয়েছে

ডেস্ক রিপোর্ট | প্রকাশিত: ২৯ জুন ২০২১ ২১:৩৬; আপডেট: ৫ অক্টোবর ২০২২ ০১:২৭

বিশ্বজুড়ে তিনশ কোটির বেশি কোভিড-১৯ টিকার ডোজ দেওয়া হয়েছে। বার্তা সংস্থা এএফপি দেশে দেশে করোনার টিকা দেওয়ার যে হিসাব রেখে আসছে সেই হিসাব অনুযায়ী, মঙ্গলবার গোটা বিশ্বে টিকা দেওয়ার সংখ্যা তিনশ কোটি ছাড়ায়।

নতুন ধরনে বিশ্বে করোনার প্রকোপ বাড়ছে। রেকর্ড মৃত্যু হয়েছে রাশিয়ায়। অস্ট্রেলিয়ায় একের পর এক শহর লকডাউন হচ্ছে। অনেক দেশ আবারও জারি করছে কঠোর বিধিনিষেধ। এর তুলনায় দেশে দেশে টিকাদানের গতি অনেকটাই মন্থর।

তবে টিকা দেওয়ার গতি মন্থর দরিদ্র ও উন্নয়নশীল দেশগুলোতে। আর উন্নত দেশগুলো তাদের উৎপাদিত টিকা আগে নিজের দেশের নাগরিককে দিয়ে মাহামারি নিয়ন্ত্রণের দাবি করছে। টিকার ক্ষেত্রে ধনী ও গরিবের বৈষম্য আরও প্রকট হয়েছে।

উচ্চ আয়ের দেশগুলোতে গড়ে একশ জন বাসিন্দার মধ্যে ৭৯ জনকে টিকা সরবরাহ করেছে। অন্যদিকে স্বল্প আয়ের দেশগুলোতে প্রতি একশ জন বাসিন্দার মধ্যে টিকা দেওয়ার হার মাত্র এক শতাংশ। 

বিশ্বব্যাংক সংজ্ঞায়িত উচ্চ আয়ের দেশগুলোতে গড়ে একশ জন বাসিন্দার মধ্যে ৭৯ জনকে টিকা সরবরাহ করা হয়েছে। তালিকায় সবার ওপরে মধ্যপ্রাচ্যের সংযুক্ত আরব আমিরাত, বাহরাইন আর ইসরায়েল ছাড়াও রয়েছে পশ্চিমা বিশ্বের অনেক দেশ।

অন্যদিকে স্বল্প আয়ের দেশগুলোতে প্রতি একশ জন বাসিন্দার মধ্যে টিকা দেওয়ার হার মাত্র এক শতাংশ। উন্নত দেশগুলো আগে নিজেদের টিকা দেওয়ার লক্ষ্য নেওয়ায় এসব দেশের হাতে টিকা আসছে না। ফলে তারা পিছিয়ে পড়ছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান তেদরোস আধানোম গেব্রেয়াসুস বলছেন, দরিদ্র দেশগুলো টিকা নিয়ে সংকটে রয়েছে। এসব দেশের ঝুঁকিপূর্ণ জনগোষ্ঠীও টিকা পাচ্ছে না। আর অন্যদিকে ধনী দেশগুলোতে উচ্চ ঝুঁকিতে না থাকা তরুণদেরও টিকা দেওয়া হচ্ছে। 

একে বৈশ্বিক ব্যর্থতা অভিহিত করে ডব্লিউএইচও মহাপরিচালক বলেন, ‌‘বিশ্ব ব্যর্থ হয়ে যাচ্ছে। বিশ্ব সম্প্রদায় ব্যর্থ হয়ে যাচ্ছে।’ স্বল্প আয়ের দেশগুলোতে টিকা সরবরাহ করতে অনিচ্ছুক দেশগুলোকে কঠোর শাস্তির আওতায় আনার কথা বলেন তিনি।

কোভ্যাক্স কর্মসূচির আওতায় ১৩১ দেশকে নয় কোটি ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে। কিন্তু দেশগুলোর কোনোটির কাছে জনগণকে সুরক্ষা দেওয়ার মতো পর্যাপ্ত টিকা নেই।

সম্প্রতি বিশ্বের শীর্ষ শিল্পোন্নত দেশগুলোর জোট জি৭–এর নেতারা মহামারি নিয়ন্ত্রণে করোনাভাইরাসের টিকার ১০০ কোটি ডোজ দরিদ্র দেশগুলোকে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিলেও তাদের টিকা সরবরাহে ধীরগতির এই নীতি বিশ্বজুড়ে সমালোচিত ​হয়েছে।

কোভ্যাক্স কর্মসূচির আওতায় ১৩১ দেশকে নয় কোটি ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে। কিন্তু দেশগুলোর কোনোটির কাছে জনগণকে সুরক্ষা দেওয়ার মতো পর্যাপ্ত টিকা নেই। অথচ ভাইরাসটির বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়া এখনও অব্যাহত আছে।

বিশ্বজুড়ে টিকা প্রাপ্তি নিশ্চিত করতে গত বছর কোভ্যাক্স গঠন করা হয়। এই উদ্যোগে দরিদ্র দেশগুলোকে টিকা ক্রয়ের ক্ষেত্রে ধনী দেশগুলোর ভর্তুকি দেওয়ার কথা। কিন্তু উদ্যোগের নেতৃত্বে থাকা ডব্লিউএইচও বারবার টিকার ঘাটতির কথা বলে আসছে। কোভ্যাক্স ২০২১ সালে ২০০ কোটি ডোজ টিকা যোগান দেওয়ার ​লক্ষ্য নিলেও উৎপাদনে দেরি, সরবরাহে বিঘ্ন ইত্যাদি কারণে এই টিকার বিতরণ বাধাগ্রস্ত হয়েছে।

এদিকে ভারতে প্রথম শনাক্ত করোনার অতিসংক্রামক ডেল্টা ধরনটি গোটা বিশ্বেই ‘আধিপত্য’ বিস্তার করছে বলে সম্প্রতি জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। এটির বিস্তার বাড়তে থাকলে বিশ্বজুড়ে আবার প্রকোপ শুরুর ব্যাপারেও সতর্ক করেছে সংস্থাটি।

কোভ্যাক্স ২০২১ সালে ২০০ কোটি ডোজ টিকা যোগান দেওয়ার ​লক্ষ্য নিলেও উৎপাদনে দেরি, সরবরাহে বিঘ্ন ইত্যাদি কারণে এই টিকার বিতরণ বাধাগ্রস্ত হয়েছে। এতে কোভ্যাক্সের ওপর পুরোপুরি নির্ভরশীল দেশগুলোতে টিকার ঘাটতি দেখা দিয়েছে।




আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top