ঢাকা রবিবার, ২৯ মে ২০২২, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

চলতি মাসেই অর্ধলক্ষাধিক শিক্ষক নিয়োগে গণবিজ্ঞপ্তি

নিজস্ব প্রতিবেদক: | প্রকাশিত: ১৯ মার্চ ২০২১ ২১:০৮; আপডেট: ২৯ মে ২০২২ ১৪:০১

শিক্ষক নিয়োগের ৩য় গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশে তোড়জোড় শুরু করেছে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ)। ইতোমধ্যে গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অনুমতি মিলেছে। শূন্যপদের তথ্য সংশোধনের কাজ চলছে। চলতি মাসেই অর্ধলক্ষাধিক শিক্ষক নিয়োগ সুপারিশের লক্ষ্যে গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পরিকল্পনা করেছে এনটিআরসিএ। এনটিআরসিএর একাধিক কর্মকর্তার সাথে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।

সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে এনটিআরসিএর একজন উর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, চলতি মাসেই শিক্ষক নিয়োগের গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করছি। আশা করছি এ মাসেই গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হবে। তবে, কবে নাগাদ গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হবে তা সুস্পষ্টভাবে মন্তব্য করতে চাননি তিনি। 

তিনি আরও জানান, এ মুহুর্তে শূন্যপদের তথ্য সংশোধন করছি। কয়েকদফা সংশোধনের পর ও এমপিওবঞ্চিতদের সুপারিশের পর এ মুহুর্তে বিভিন্ন স্কুল, কলেজ মাদরাসা ও কারিগরি প্রতিষ্ঠানের ৫৬ হাজার এন্ট্রি লেভেলের শিক্ষক শূন্যপদের তথ্য এনটিআরসিএর কাছে আছে। যদিও নতুন করে শূন্যপদের প্রচুর ভুল তথ্য পাওয়া যাচ্ছে। যেগুলো যাচাই বাছাই চলছে। আশা করছি, যাচাই শেষ অর্ধলক্ষাধিক শিক্ষক শূন্যপদে নিয়োগ সুপারিশের লক্ষ্যে গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হবে। 

কবে নাগাদ গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হবে জানতে চাইলে তিনি  আরও জানান, শূন্যপদের তথ্য সংশোধন করেই গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হবে। এ মাসেই গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হবে, সেভাবেই পরিকল্পনা করা হয়েছে। কেউ কেউ গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশের বিষয়টি প্রভাবিত করার চেষ্টা করছে জানিয়ে তিনি আরও বলেন, আমরা সর্বচ্চো চেষ্টা করছি দ্রুত গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করার। তবে, কেউ কেউ চাচ্ছে দেরিতে গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হোক। তাই, সার্বিক কাজ গোছানোর আগে সুস্পষ্ট দিন তারিখের ঘোষণা দিচ্ছি না।

ইতোমধ্যে গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশের অনুমতি চেয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো এনটিআরসিএর প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে। তবে, নির্ভেজাল নিয়োগ দেয়ার লক্ষ্যে শূন্যপদের ভুল তথ্য সংশোধনের বিষয়ে প্রাধান্য দিচ্ছে এনটিআরসিএ। 

জানা গেছে, সম্প্রতি ২য় চক্রে নিয়োগ পাওয়া ১ হাজার ২৮৪ জন শিক্ষককে নতুন করে সুপারিশ করা হয়েছে। এর মধ্যে থেকে এখন পর্যন্ত নব্বই জনের বেশি আবারও ভুল পদে সুপারিশ পেয়েছেন বলে তথ্য পাওয়া গিয়েছে। এনটিআরসিএর কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, নতুন সুপারিশ পাওয়াদের সমস্যা সমাধান ও শূন্যপদের তথ্য সংশোধনের পর গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশের বিষয়ে কাজ শুরু হবে।

এ মুহুর্তে ৫৬ হাজারের বেশি শূন্যপদের তথ্য এনটিআরসিএর হাতে আছে। তবে, যাচাই বাছাই ও সংশোধনে সে সংখ্যা কিছুটা কমবে বলেও ধারণা কর্মকর্তাদের। 

বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এন্ট্রি লেভেলে শিক্ষক নিয়োগের লক্ষ্যে প্রার্থী বাছাইয়ের কাজ করে এনটিআরসিএ। বাছাই করা প্রার্থীদের আর কোনও পরীক্ষা দিতে হয় না। ইতোমধ্যে দুইটি চক্রে ২০১৬ খ্রিষ্টাব্দে ও ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এন্ট্রি লেভেলের শিক্ষক নিয়োগে প্রার্থী সুপারিশ করেছে এনটিআরসিএ। 

এদিকে ১-১৫তম নিবন্ধন পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীরা দ্রুততম সময়ে গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে তৃতীয় দফায় শিক্ষক নিয়োগ কার্যক্রম শুরু করার দাবি জানিয়েছে। আর ১৬তম প্রার্থীরা চাচ্ছেন তাদের ফল প্রকাশের পর শিক্ষক নিয়োগ কার্যক্রম শুরু হোক।




আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top