ঢাকা শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৯ আশ্বিন ১৪২৮

বার্সেলোনা চ্যাম্পিয়ন

সংবাদ প্রতিদিন | প্রকাশিত: ১৮ এপ্রিল ২০২১ ০৩:৫৭; আপডেট: ১৮ এপ্রিল ২০২১ ১৪:০২

দীর্ঘদিন ধরে বার্সার শিবিরে শুধু ম্যাচ হারার শঙ্কা আর ট্রফি ব্যতিত মৌসুম শেষ এর প্রতিক্ষা যেন এক নিয়মিত ব্যপার হয়ে দাড়িয়েছে। কাতালান দলের নতুন সভাপতি নির্বাচন আর দলের ভাঙ্গাগড়া নিয়ে চলছিল। তারমধ্যে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ থেকে ছিটকে পড়া। আবার গত সপ্তাহে রিয়ালের কাছে পরাজিত হয়ে শিরোপার স্বপ্নটি আরো ধুসর হয়ে যাচ্ছে। তাছাড়া বছরের প্রথমেই স্প্যানিশ ট্রফিও ছোঁয়া হয়নি। তাই কোপা দেল রের ফাইনলাটি জয় করা বার্সার জন্য ছিল খুবই গুরুত্বপূর্ণ। 

 

অবশেষে সেভিয়ার লা কার্তুসা মাঠে ঘুরে দাড়িয়েছে লিওনেল মেসির দল। শূন্য হাতে ফিরতে হয়নি কোম্যান শীর্ষদের। বরং দারুণ ছন্দময় এবং পরিকল্পনার এক ফুটবল খেলে বার্সেলোনা মৌসুমের প্রথম ট্রফি জিতে নিয়েছে। মাত্র ১২ মিনিটের ঝড়ে বিলবাও খড়কুটোর মতো উড়ে গেছে! আর এই জয়তে গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করেন লিওনেল মেসির। আর্জেন্টাইন তারকার জোড়া গোলে কাতালানরা ৪-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে অ্যাথলেটিক বিলবাওকে।

 

কোপা দেল রেতে সবচেয়ে বেশী চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরবও বার্সেলোনার।  এবার নিয়ে ৩১ বার ট্রফি হাতে নিয়েছে বার্সা। অন্য দিকে অ্যাথলেটিক বিলবাও কম যায়নি তারও জিতেছে ২৩ বার।

 

বার্সা খেলার শুরুতেই প্রতিপক্ষকে শুরু থেকে চেপে ধরে খেলতে থাকে। একের পর আক্রমণ গড়ে তটস্থ রেখেছে বিলবাওকে। বল পজিশন এর দিক থেকে বার্সা বরাবরই এগিয়ে থেকে খেলতে থাকে, কিন্তু বার্সার বর্তমান যে সমস্যা তা গোল খরা, তাও ছিল প্রথমার্ধে। প্রথমার্ধে একের পর এক আক্রমন করে বার্সা গোলের দেখা পায়নি। বিলবাওর ডিফেন্ডাররা রুখে দিয়েছেন। আর গোলকিপার উনাই সিমনও খারাপ খেলেননি।

 

ম্যাচের প্রথম ৫ মিনিটেই মেসির পাসে ডি ইয়ংয়ের প্রচেষ্টা পোস্টে লেগে ফিরে আসে। দুই মিনিট পর ডেস্ট এর শট পোস্টের বাইরে দিয়ে যায়। ১১ মিনিটে মেসির পাসে গ্রিজম্যান লক্ষ্যে শট নিতে পারেননি। ২৬ মিনিটে মেসির শট  রুখে দেয় বিলবাওর এক ডিফেন্ডার।

 

দ্বিতীয়ার্ধে বার্সার প্রথম থেকে পরিকল্পনা নিয়ে আগাতে থাকে। প্রথমার্ধের মতো আক্রমন অব্যাহত রেখে খেলতে থাকে। আর পরিকল্পনার সঠিক প্রয়োগেই বার্সা সাফল্য পেতে শুরু করে। তারমধ্যেও ৪৭ মিনিটে দেস্টের ক্রস থেকে গ্রিজম্যান লক্ষ্যভেদ করতে পারেননি। এরপরে পেদ্রি ও বুসকেটসের শটও গোলকিপার সিমন রুখে দিয়ে দলকে ম্যাচে রাখেন।

 

ম্যাচের ৬০ থেকে ৭২ মিনিট এই ১২ মিনিটে বার্সেলোনা যেন বুলডোজার চালিয়েছে বিলবাওর উপর। রীতিমতো ঝড় বয়ে গেছে। এই ১২ মিনিটে গোল এসেছে চারটি!

৬০ মিনিটে ডি ইয়ংয়ের ক্রসে গ্রিজম্যান বা পায়ে প্লেসিং করে দেন। ৬২ মিনিটে এবার ইয়ং নিজেই গোল পেলেন। জর্ডি আলবার লবে ডি ইয়ং নিচু হেডে ২-০ করেন। ৬৮ ও ৭২ মিনিটে লিওনেল মেসি গোল পেলেন। প্রথমটি বক্সে ঢুকে এক ডিফেন্ডার ও গোলকিপারের মাঝ দিয়ে বল জালে জড়ান মেসি। মেসি তার দ্বিতীয় গোলটি সতীর্থের ক্রসে পা চালিয়ে দিয়ে দলকে ৪-০ গোলে এগিয়ে নেন।

কিন্তু মাঝে মধ্যেই বিলবাও চেষ্টা করে গেছে বার্সার শিবিরে আক্রমনের। কিন্তু এবার বার্সার রক্ষনভাগ প্রতিপক্ষকে আর কোন সুযোগ কাজে লাগাতে দেয়নি। বড় ব্যবধানে হার নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয়েছে মার্সেলিনো গার্সিয়ার বিলবাওকে। অন্য দিকে বার্সা শিবিরে এই শিরোপা যেন বড় স্বস্তি! ৭৩১দিন পর যে ট্রফি এলো। এছাড়া কোম্যানের অধীনে প্রথম ট্রফিও পেলো দল।

ম্যাচ সেরা হয়েছেন আর্জেন্টাইন সুপার স্টার লিওনেল মেসি। 




আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top