ঢাকা, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০১৭, ১৫ ফাল্গুন ১৪২৩, স্থানীয় সময়: ১৩:২১:৫০

ভ্যাট আইনে ব্যবসায়ীরা বেশি সুবিধা পাবে

অর্থনীতি, শিরোনাম, সর্বশেষ | ২৫ পৌষ ১৪২৩ | Sunday, January 8, 2017

সংবাদ প্রতিদিন: ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প (এসএমই) উদ্যোক্তাসহ সব পর্যায়ের ব্যবসায়ীরা পূর্বের ভ্যাট আইনের চেয়ে নতুন আইনে অনেক বেশি সুবিধা পাবেন বলে জানিয়েছেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমান।
---

আজ রবিবার রাজধানীর কাকরাইল আইডিইবি ভবনে ভ্যাট অনলাইন প্রকল্প কার্যালয়ে ক্ষুদ্র্র ও মাঝারি পর্যায়ের ব্যবসায়ীদের নিয়ে ‘মূল্য সংযোজন কর ও সম্পূরক শুল্ক আইন, ২০১২’ বিষয়ক এক কর্মশালায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, নতুন ভ্যাট আইন আর্ন্তজাতিক মানসম্পন্ন,যুগোপযোগী ও সম্পূর্ণ অনলাইনভিত্তিক।

নতুন আইন বাস্তবায়ন হলে ছোট-বড় কোন ব্যবসায়ী ক্ষতিগ্রস্ত হবে না, বরং ব্যবসায় স্বচ্ছতা আসার পাশাপাশি পূর্বের আইনের চেয়ে বেশি সুবিধা পাবেন।

নজিবুর রহমান বলেন, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প উদ্যোক্তারা দেশের অগ্রগতিতে মূল ভূমিকা পালন করছেন। নতুন ভ্যাট আইন বিষয়ে তাদের সম্যক ধারণা থাকা একান্ত অপরিহার্য। এজন্য তাদের যথাযথ প্রশিক্ষণ প্রয়োজন। এ লক্ষ্যে এফবিসিসিআইয়ের সাথে আমরা পার্টনারশিপ স্থাপন করেছি।

তিনি বলেন,নতুন আইন সম্পর্কে আমরা এফবিসিসিআই প্রতিনিধিদের টিওটি (প্রশিক্ষক প্রশিক্ষণ) প্রদান করে যাচ্ছি। পর্যায়ক্রমে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত প্রশিক্ষকগণ মাঠ পর্যায়ে এসএমই উদ্যোক্তাদের প্রশিক্ষণ প্রদান করবেন।

এনবিআর প্রধান বলেন,নতুন ভ্যাট আইন বাস্তবায়নে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সাথে ঘনিষ্ঠ অংশীদারিত্ব স্থাপন করা হচ্ছে। ধর্মীয় শিক্ষা গুরুরা হবে এ আইনের জনমত সৃষ্টিকারী প্রধান ব্যক্তি। মুসলিম, হিন্দু, বৌদ্ধ ও খ্রিস্টান এ চার ধর্মের যারা শিক্ষাগুরু, ইসলামিক ফাউন্ডেশনসহ সকল ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান যারা দেখাশুনা করেন তাদের ভ্যাটের পাশাপাশি আয়কর ও শুল্ক বিষয়েও প্রশিক্ষণ প্রদান করা হবে।

নতুন ভ্যাট আইন সম্পর্কে তিনি আরো বলেন,এ আইনের বিষয়ে ব্যবসায়ীদের সকল সুপারিশ সুবিবেচনায় এনে জাতীয় স্বার্থে যা যা করা দরকার এনবিআর তাই করবে। নতুন ভ্যাট আইনের ক্ষেত্রে আমাদের স্লোগান হবে-‘ভ্যাট আইন হবে পানির মতো স্বচ্ছ ও সহজ’।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম বলেন, এনবিআরের বর্তমান নেতৃত্ব অংশীজনদের সহযোগিতা নিয়ে এগুচ্ছে। এটা অত্যন্ত ইতিবাচক। এনবিআর এবং করদাতা এখন পরস্পরের সক্রিয় পার্টনার এবং সহায়ক শক্তি হিসেবে কাজ করে সর্বত্র নতুন উদাহরণ তৈরি করেছে।

তিনি বলেন,রাজস্ব দেশের জনগণের কাছে রাষ্ট্রের আমানত। রাষ্ট্রকে রাজস্ব না দিয়ে আমানতের খেয়ানত করলে পরপারে হিসাব দিতে হবে।

যাকাত ধর্মীয় বিধান হলেও কর ধর্মীয় বিধান না। তবে ধর্মে বলা হয়েছে যদি রাষ্ট্র কোন আইনি দায়িত্ব দেয়া হয়, তাহলে তা পালন করতে হবে। আইনের একটি অংশে বলা হয়েছে, রাষ্ট্রকে সঠিকভাবে কর প্রদান করুণ। ব্যবসায়ী, সরকারি কর্মকর্তা,জনগণ সবাই আমানতদার। ব্যবসায়ীরা রাষ্ট্রকে সঠিকভাবে কর না দিলে মনে করতে পারেন ফাঁকি দিলাম।

তিনি আরো বলেন, করফাঁকি দিয়ে আমরা মনে করতে পারি ১৬ কোটি মানুষকে ঠকালাম। আসলে আমরা নিজেরাই ঠকে গেলাম। পাশাপাশি রাজস্ব না দিয়ে মানুষের হক নষ্ট না করার জন্য আহ্বান জানান।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়,নতুন ভ্যাট আইন অনুযায়ী ক্ষুদ্র ও মাঝারী ব্যবসায়ী যাদের বার্ষিক টার্নওভার ৩০ লাখ টাকার উপরে নয় তাদের কোন কর প্রদান করতে হবে না। যাদের বার্ষিক টার্নওভার ৩০ থেকে ৮০ লাখ টাকা তারা ৩% হারে টার্নওভার কর প্রদান করতে হবে। নতুন এ আইনে অনলাইনে নিবন্ধন নেয়া ও রিটার্ন দাখিল করা যাবে।

অনুষ্ঠানে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সিনিয়র সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন। এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন এসএমই ফাউন্ডেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো: সফিকুল ইসলাম।

সংবাদ প্রতিদিন/রিন্টু